https://public-voice24.com/wp-content/uploads/2022/03/favicon.ico-300x300.png
ঢাকাশনিবার , ৪ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ক্রিসেন্ট ট্যানারি ও জনতা ব্যাংকের ১৬ জনের বিরুদ্ধে অর্থ পাচারের অভিযোগে মামলা

পাবলিক ভয়েস
মার্চ ৩, ২০২২ ৮:০৯ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ভুয়া রফতানি বিল তৈরি করে প্রায় ৬৯ কোটি আত্মসাৎ ও পাচারের অভিযোগে ক্রিসেন্ট ট্যানারিজ ও জনতা ব্যাংকের ১৬ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন- দুদক। বৃহস্পতিবার (৩ মার্চ) দুদকের উপ-পরিচালক গুলশান আনোয়ার প্রধান বাদী হয়ে রাজধানীর চকবাজার মডেল থানায় এই মামলা (নং ২১) দায়ের করেন। দুদকের জনসংযোগ শাখার উপ-পরিচালক মুহাম্মদ আরিফ সাদেক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আসামিরা হলেন- মেসার্স ক্রিসেন্ট ট্যানারিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান এম এ কাদের, ব্যবস্থাপনা পরিচালক সুলতানা বেগম, পরিচালক রেজিয়া বেগম, জনতা ব্যাংক প্রধান কার্যালয়ের সিনিয়র অফিসার (এইআরএম) আব্দুল্লাহ আল মামুন, জরুহল ইসলাম, সাইদুজ্জামান, প্রিন্সিপাল অফিসার মোহাম্মদ রুহুল আমীন, সিনিয়র প্রিন্সিপাল অফিসার মাগরেব আলী, খায়রুল আমিন, এজিএম আতাউর রহমান সরকার, ডিজিএম এ. কে. এম আসাদুজ্জামান, ডিজিএম মুহাম্মদ ইকবাল, জিএম রেজাউল করিম, ডিজিএম কাজী রইস উদ্দিন আহমেদ, জনতা ব্যাংকের সাবেক জিএম ও বর্তমানে সোনালী ব্যাংকের ডিএমডি মো. জাকির হোসেন এবং জনতা ব্যাংকের সাবেক জিএম ও বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের বর্তমান ডিএমডি ফখরুল আলম।

দুদক সূত্র জানায়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে ব্যাংকের শতার্দি লঙ্ঘন করে জাল-জালিয়াতি আশ্রয়ে গ্রাহক কর্তৃক রফতানি না করেও ভুয়া ডকুমেন্ট দেখিয়ে এফডিবিপি ও প্যাকিং ক্রেডিট বাবদ জনতা ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে এবং রফতানি ঋণ সুবিধা গ্রহণপূর্বক অর্থ আত্মসাৎ করেছে। ভুয়া এই রফতানি বিলের বিপরীতে মেসার্স ক্রিসেন্ট ট্যানারিজ লিমিটেড এর অনুকূলে রফতানি না করেও ভুয়া ডকুমেন্ট দেখিয়ে জনতা ব্যাংকের ইমামগঞ্জ শাখা থেকে মোট ৬৮ কোটি ৩৪ লাখ ৯৫ হাজার ১২০ টাকা তুলে নেয়।

দুদক সূত্র জানায়, আসামিরা এই অর্থ উত্তোলনের মাধ্যমে আত্মসাৎ পূর্বক অপরাধলব্ধ আয় অর্জন করে তা স্থানান্তর/রূপান্তরের মাধ্যমে অবস্থান গোপন করে দেশের অভ্যন্তরে বা দেশের বাইরে পাচার করেছেন বা আত্মসাৎ করেছেন। রফতানির বিপরীতে রফতানিমূল্য দেশে না  এনে বিদেশে রেখেছেন।