https://public-voice24.com/wp-content/uploads/2022/03/favicon.ico-300x300.png
ঢাকাবৃহস্পতিবার , ২৬শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

বন্যপ্রাণী রক্ষায় পরিবেশমন্ত্রী সহযোগিতা চাইলেন সংবাদ মাধ্যমের

পাবলিক ভয়েস
মার্চ ৩, ২০২২ ৫:৫৪ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বন্যপ্রাণী রক্ষায় সংবাদ মাধ্যমের সহযোগিতা চাইলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন। তিনি বলেছেন, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে বাংলাদেশ সরকার সর্বদাই সচেষ্ট। বন্যপ্রাণী বিষয়ক সকল ধরণের কার্যক্রমকে সাফল্যমণ্ডিত করে তুলতে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

বৃহস্পতিবার (৩ মার্চ) বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস উপলক্ষে বন অধিদফতরে আয়োজিত এক আলোচনা সভা তিনি এ আহ্বান জানান। রাজধানীর আগারগাঁও বন ভবনের হৈমন্তী অডিটোরিয়ামে আয়োজিত এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে মন্ত্রী বলেন, দেশের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের লক্ষ্যে সরকার কর্তৃক বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে একটি হলো- প্রাকৃতিক পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা এবং টেকসই ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল সংরক্ষণ ও উন্নয়নের লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার ৫১টি এলাকাকে রক্ষিত এলাকা হিসেবে ঘোষণা করেছে। এছাড়াও রক্ষিত এলাকা ছাড়া অন্যান্য এলাকায় ২টি সাফারি পার্ক, ১টি অ্যাভিয়ারি পার্ক স্থাপন করা হয়েছে। মহাবিপন্ন বাংলা শকুন রক্ষায় ২০১৪ সালে দেশের দুটি অঞ্চলকে শকুনের জন্য নিরাপদ এলাকা হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। শকুনের জন্য ক্ষতিকারক ভেটেরিনারি ওষুধ ডাইক্লোফেনাক ও কিটোপ্রফেনের উৎপাদন  দেশব্যাপী নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

 তিনি আরও বলেন, পরিযায়ী পাখি সংরক্ষণের জন্য সরকার ৬টি এলাকাকে ‘পূর্ব এশিয়ান অস্ট্রেলিয়ান ফ্লাইওয়ে সাইট’ ঘোষণা করা হয়েছে। এছাড়া ডলফিন, তিমি, হাঙ্গর এবং অন্যান্য সামুদ্রিক প্রাণী সংরক্ষণের জন্য বঙ্গোপসাগরের সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ড এলাকার ১৭৩৮ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে দেশের প্রথম সামুদ্রিক সুরক্ষিত এলাকা ঘোষণা করা হয়েছে।

তিনি জানান, সম্প্রতি সেন্টমার্টিন দ্বীপ সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরের ১৭৪৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকাকে মেরিন প্রটেকটেড এরিয়া হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সাবের হোসেন চৌধুরী এমপি বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বলেন, বনভূমির অভ্যন্তরে বসতি স্থাপন ও অবকাঠামো নির্মাণ, বনভূমিকে কৃষিজমিতে রূপান্তরের জন্য প্রতিনিয়ত বাংলাদেশের বনভূমি সংকুচিত হচ্ছে। বন্যপ্রাণী হারাচ্ছে তাদের আবাসস্থল ও চারণভূমি।  বিলুপ্ত হচ্ছে বহু প্রজাতির সংকটাপন্ন বন্যপ্রাণী।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ইকবাল আব্দুল্লাহ হারুন, একই মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. মনিরুজ্জামান এবং  বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রেজাউল হক খান প্রমুখ।