https://public-voice24.com/wp-content/uploads/2022/03/favicon.ico-300x300.png
ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৯ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

৩১ থেকে ৪০ বছর বয়সীরা বেশি আক্রান্ত চট্টগ্রামে

পাবলিক ভয়েস
মার্চ ১২, ২০২২ ৩:৩৮ অপরাহ্ণ
Link Copied!

চট্টগ্রামে কমে এসেছে করোনায় শনাক্তের হার। শনিবার (১২ মার্চ) ১৫টি উপজেলায় নতুন করে কোনও করোনা রোগী শনাক্ত হয়নি। ৯টি ল্যাবে সকাল ৮টা পর্যন্ত ৫৩৭টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছে তিন জন।

সিভিল সার্জন অফিসের তথ্যমতে, চট্টগ্রামে এক লাখ ২৬ হাজার ৫৮৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এরমধ্যে নগরীতে ৯২ হাজার ৬০ জন ও জেলার ১৫টি উপজেলায় শনাক্ত হয়েছে ৩৪ হাজার ৫২৪ জন। চট্টগ্রামে করোনায় মারা গেছেন এক হাজার ৩৬২ জন। এরমধ্যে নগরীতে ৭৩৪ ও জেলায় ৬২৮ জন মারা গেছেন।

তবে অনুসন্ধানে দেখা গেছে শনাক্তদের মধ্যে ৩১ থেকে ৪০ বছর বয়সীরাই বেশি। এই বয়সসীমার মধ্যে ২৮ হাজার ১১০ জন শনাক্ত হয়েছে। যা শনাক্তের হার ২২ দশমিক ২০ শতাংশ। শনাক্তের মধ্যে ২১ থেকে ৩০ বছর বয়সীদের হার ১৮ দশমিক ৯৮ শতাংশ। ৪১ থেকে ৫০ বছর বয়সীদের শনাক্তের হার ১৭ দশমিক ২৭ শতাংশ। ৫১ থেকে ৬০ বছর বয়সীদের শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৫৩ শতাংশ, ৬১ থেকে ঊর্ধ্বে শনাক্তের হার ১৬ দশমিক ৭২ শতাংশ, ১১ থেকে ২০ বছর বয়সীদের মধ্যে শনাক্তের হার ৬ দশমিক ১৭ শতাংশ এবং শূন্য থেকে ১০ বছর বয়সীদের শনাক্তের হার ২ দশমিক ১০ শতাংশ।

এদিকে উপজেলা পর্যায়ে শনাক্ত হওয়া ৩৪ হাজার ৫২৪ জনের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রয়েছে হাটহাজারী উপজেলায়। এ উপজেলায় আক্রান্তের হার ছয় হাজার ৭২৭ জন।সবচেয়ে কম শনাক্ত হয়েছে কর্ণফুলী উপজেলায়। এ উপজেলায় শনাক্ত হয়েছে মাত্র সাত জন। শনাক্তে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অবস্থানে রয়েছে রাউজান উপজেলা। এখানে চার হাজার ৭১৬ জনের করোনা শনাক্ত রয়েছে। এরপর ফটিকছড়িতে তিন হাজার ৩২৫ জন, সীতাকুণ্ডে দুই হাজার ৮২৬ জন, রাঙ্গুনিয়ায় দুই হাজার ৫১২ জন, পটিয়ায় দুই হাজার ৪৪৩ জন, বোয়ালখালীতে দুই হাজার ২২৯ জন, আনোয়ারায় এক হাজার ৮২০ জন, মিরসরাইয়ে এক হাজার ৫০৮ জন, বাঁশখালীতে এক হাজার ২০৬ জন, সাতকানিয়ায় এক হাজার ৪২২ জন, চন্দনাইশে এক হাজার ২৭১ জন, লোহাগাড়ায় এক হাজার ৪৯ জন, সন্দ্বীপে রয়েছেন ৯৪৬ জন।

এদিকে মৃত্যুর দিক থেকেও এগিয়ে আছে হাটহাজারী উপজেলা। এ এলাকায় ১২৪ জন মারা গেছেন এবং কর্ণফুলী উপজেলায় করোনায় কেউ মারা যায়নি।

চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইলিয়াছ চৌধুরী জানান, করোনা শনাক্তের হার অনেক কমে এসেছে। শনিবার জেলায় একজনও শনাক্ত হয়নি। নগরীতে তিন জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।