https://public-voice24.com/wp-content/uploads/2022/03/favicon.ico-300x300.png
ঢাকাশুক্রবার , ৩রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

ছাত্র ইউনিয়নের নেতা বহিষ্কার, ধর্ষণের অভিযোগে

পাবলিক ভয়েস
মার্চ ২১, ২০২২ ৭:১৫ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ধর্ষণের অভিযোগ ওঠায় বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আকিফ আহমেদকে সংগঠন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এই অভিযোগের কারণে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদ থেকেও বহিষ্কার হয়েছেন।

সোমবার (২১ মার্চ) তার বিরুদ্ধে এ বহিষ্কারাদেশ দেয় ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদ। এক বছর আগের ধর্ষণের ঘটনাটির বিষয়ে রোববার (২০ মার্চ) সংশ্লিষ্ট পর্যায়ে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী তরুণী। পরে আকিফ আহমেদ পদত্যাগপত্র দেন।

তার বহিষ্কারাদেশে বলা হয়, অভিযোগ এবং স্বীকারোক্তি বিবেচনায় বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের ৩৪তম কার্যনির্বাহী পরিষদের দ্বিতীয় সভায় গঠনতন্ত্রের ৫৬(ক) ধারা মোতাবেক অভিযুক্ত আকিফ আহমেদকে সংগঠন থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সিদ্ধান্ত মোতাবেক সংগঠনের যে কোনো স্তরের যে কোনো কার্যক্রমের সঙ্গে অভিযুক্ত আকিফ আহমেদের সংশ্লিষ্টতা অবৈধ হিসেবে বিবেচিত হবে। অভিযোগকারী আগামীতে যে কোনো (আইনি) পদক্ষেপ নিতে চাইলে ছাত্র ইউনিয়ন সর্বোচ্চ সহযোগিতামূলক আচরণ করবে।

বিষয়টি সম্পর্কে অভিযুক্ত আকিফ আহমেদ বলেন, এক বছর আগে তার (ভুক্তভোগী) সঙ্গে আমার প্রেমের সম্পর্ক থাকাকালে সেক্সুয়াল ইন্টারকোর্সের (যৌন সম্পর্ক) এক পর্যায়ে সে অসম্মতি জানায়, কিন্তু আমি অগ্রাহ্য করি। এরপর দুই কি তিন মাস আমাদের সম্পর্কের টানাপোড়েন চলতে থাকে। পরে আমরা আবার রিলেশনে যাই। কিন্তু দুজনের মাঝে বনাবনি না হওয়ায় দুই মাস আগে আবার সম্পর্কচ্ছেদ হয়। এখন সে (ভুক্তভোগী) অন্য একটা ছেলের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে রয়েছে, যার সঙ্গে আমার ছাত্র ইউনিয়ন ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চলচ্চিত্র সংসদে বিরোধ আছে। তাই বলা যায়, ছাত্র ইউনিয়নে আমার দায়িত্ব গ্রহণের পর এক বছরের পুরনো বিষয়ে অভিযোগ আনার পেছনে কোনো তৃতীয় ব্যক্তির স্বার্থ জড়িত থাকতে পারে। বিষয়টি খতিয়ে দেখলে অনেক কিছুই বের হয়ে আসবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক আদনান আজিজ বলেন, এক বছর পুরনো হোক আর ১০ বছর পুরনো হোক, ভুক্তভোগী যে কোনো সময় চাইলে অভিযোগ করতে পারেন। এখন এই বিষয়ে আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ এসেছে। একইসঙ্গে অভিযুক্ত ব্যক্তির লিখিত পদত্যাগপত্রও এসেছে। এ দুইয়ের সমন্বয়ে বিষয়টা পরিষ্কার হয়ে ওঠে যে, অভিযুক্ত আসলেই অপরাধী। তাই সাংগঠনিক জায়গা থেকে তাকে বহিষ্কার করা ছাড়া আমাদের কোনো উপায় ছিল না।

ছাত্র ইউনিয়নের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংসদের সভাপতি শিমুল কুম্ভকার বলেন, আমরা একটা অভিযোগ পেয়েছি এবং অভিযুক্ত তার দায় স্বীকার করেছেন। অভিযোগ ও অভিযুক্তের স্বীকারোক্তি অনুযায়ী আমরা সাংগঠনিক প্রক্রিয়ায় তাকে বহিষ্কার করেছি।