https://public-voice24.com/wp-content/uploads/2022/03/favicon.ico-300x300.png
ঢাকামঙ্গলবার , ৭ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

তেল-চিনি-ডাল পেতে বাধ্যতামূলক পেঁয়াজ-ছোলা কেনা

পাবলিক ভয়েস
মার্চ ২১, ২০২২ ৬:৫৭ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) সাশ্রয়ী মূল্যের পণ্য কিনে বাস্তবে আর দাম সাশ্রয় হচ্ছে না। কারণ, একজন ক্রেতাকে মাথাপিছু দুই কেজি করে তেল, চিনি বা ডাল কেনার জন্য এর দ্বিগুণ অর্থাৎ চার কেজি করে পেঁয়াজ ও ছোলা কিনতে বাধ্য করছেন ডিলাররা। এ ‘প্যাকেজ’ ছাড়া তারা পণ্য বিক্রি করছে না।

সোমবার (২১ মার্চ) রাজধানীর সেগুনবাগিচা স্কুলের সামনে টিসিবির ট্রাকে বিক্রয়কর্মীদের সঙ্গে ক্রেতাদের এ নিয়ে বাগবিতণ্ড চলে বেশ কিছুক্ষণ। সেখানে মনসুর হোসেন নামের এক ক্রেতা বলেন, ‘এরা (ডিলারের বিক্রয়কর্মীরা) চার কেজি পেঁয়াজ আর চার কেজি ছোলা না নিলে তেল চিনি ডাল দিচ্ছে না। প্যাকেজ ছাড়া বিক্রি করছে না। দুই কেজি তেল ও চিনির জন্য চার কেজি ছোলা ও পেঁয়াজ আমাদের গছানো হচ্ছে। এটা জুলুম।’

ফিরোজা বেগম নামের এক ক্রেতা বলেন, ‘প্যাকেজ যদি নিতে হয় পেঁয়াজ ও ছোলাও দুই কেজি দেওয়া হোক। তেল-চিনির জন্য দ্বিগুণ ছোলা-পেঁয়াজ কেন নেব?’

এদিকে পেঁয়াজ পচা অভিযোগ করে সুমন নামের এক ক্রেতা বলেন, ‘চার কেজি পেঁয়াজ নিয়েছি, এর মধ্যে এক দেড় কেজি পচা। জোর করে মানুষকে পচা পেঁয়াজ খাওয়ানো হচ্ছে!’

কেন প্যাকেজে পণ্য বিক্রি করছেন এমন প্রশ্নের জবাবে ডিলারের বিক্রয়কর্মী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘আমাদের বরাদ্দ যেভাবে, সেভাবে বিক্রি করছি। প্রতিটি ট্রাকে ৫০০ কেজি করে তেল (৫০০ লিটার), চিনি ও ডাল দেওয়া হয়েছে। সেখানে ১ হাজার কেজি ছোলা ও পেঁয়াজ।’

তিনি বলেন, তেল ও চিনির থেকে ছোলা-পেঁয়াজ দ্বিগুণ পরিমাণে। তাহলে আমরা এ বাড়তিটা কি বাড়িতে নেব! প্যাকেজ ছাড়া বিক্রি করলে এসব কেউ নেবে না। ট্রাকে পড়ে থাকবে, লোকসান গুনতে হবে ডিলারকে।

এ বিষয়ে টিসিবির মুখপাত্র হুমায়ূন কবির বলেন, ‘পেঁয়াজ পচনশীল। টিসিবির কাছে বেশি পেঁয়াজ থাকায় সেটা বিক্রির জন্য দেওয়া হয়েছে। ছোলা রমজান উপলক্ষে বেশি দেওয়া হয়েছে। যেন একটি পরিবার একবার ছোলা কিনে পুরো রমজান খেতে পারে।’

তিনি বলেন, এখন ছোলা সবার প্রয়োজনীয়। সেজন্য সর্বোচ্চ চার কেজি বিক্রি করতে বলা হয়েছে ডিলারদের। তবে কেউ না নিলে সেজন্য জোর করা যাবে না।

সোমবার আরও কয়েকজন ডিলারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পেঁয়াজ ও ছোলার বাড়তি বরাদ্দের কারণে বিপাকে পড়েছেন তারা। সেজন্য বাধ্য হয়ে প্যাকেজে পণ্য বিক্রি করছেন।

জালাল উদ্দিন নামের এক ডিলার বলেন, ‘পেঁয়াজ বিক্রি না করতে পারলে যা থাকবে সেটা পচে নষ্ট হবে। বাজারে পেঁয়াজের দাম কম, সেজন্য শুধু পেঁয়াজ ৩০ টাকা দরে কেউ নেবে না।’

এখন টিসিবিতে প্রতি লিটার ১১০ টাকা দরে দুই লিটার সয়াবিন তেল, ৫৫ টাকা দরে দুই কেজি চিনি, ৬৫ টাকা দরে দুই কেজি মসুর ডাল, ৫০ টাকা দরে চার কেজি ছোলা এবং ৩০ টাকা দরে চার কেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে। রাজধানীতে সোমবার ১৩৭টি ট্রাকসেলের মাধ্যমে এসব পণ্য বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা বাজারে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা, প্রতি কেজি মসুর ডাল ১১০ থেকে ১৩৫ এবং চিনি প্রতি কেজি ৮০ টাকায় বিক্রি করা হয়। সেজন্য এসব পণ্য সাশ্রয়ী মূল্যে কিনতে টিসিবির ট্রাকে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে মানুষ। কিন্তু সেই সুযোগে পেঁয়াজ ও প্রয়োজনের অতিরিক্ত ছোলাও গছিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

অন্যদিকে রাজধানীর বাইরে ফ্যামিলি কার্ডের মাধ্যমে দুই কিস্তিতে ১ কোটি পরিবারের কাছে টিসিবির পণ্য বিক্রি করা হচ্ছে। প্রথম কিস্তি চলবে ২০-৩০ মার্চ এবং দ্বিতীয় কিস্তি চলবে ৩-২০ এপ্রিল।