Tuesday 27th September 2022

পাবলিক ভয়েস

পৃথিবীর মানুষের জন্য একটি কণ্ঠস্বর

যশোরে টিএসপি সাের আত্মসাৎ ও ভেজাল দেওয়ার ঘটনায় মামলা

মার্চ ২৯, ২০২২ by পাবলিক ভয়েস
No Comments

বাংলাদেশ রসায়ন শিল্প সংস্থার (বিসিআইসি) যশোর বাফার গুদামে পরিবহন না করে ৭৩ মেট্রিক টন ট্রিপল সুপার ফসফেট (টিএসপি) সার আত্মসাৎ এবং ৭০ মেট্রিক টন সারে ভেজাল দেওয়ার ঘটনায় সার পরিবহন ঠিকাদার এবং তার প্রতিনিধির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

টিএসপি কমপ্লেক্স লিমিটেডের উপমহাব্যবস্থাপক (বাণিজ্যিক) মোহাম্মদ সোলায়মান গতকাল রবিবার রাতে যশোর কোতোয়ালি থানায় মামলাটি করেন।

মামলায় চট্টগ্রামের পরিবহনকারী ঠিকাদার মেসার্স সৈয়দ এন্টারপ্রাইজের সত্ত্বাধিকারী আহসান হাবীব (৪০) এবং তার প্রতিনিধি মোহাম্মদ ইব্রাহিম হায়দারকে (৩৮) আসামি করা হয়েছে।

আহসান হাবীব চট্টগ্রামের মাঝিরঘাট এলাকার আব্দুর রাজ্জাক মিয়ার ছেলে। মোহাম্মদ ইব্রাহিম হায়দার চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার বাউরিয়া গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে।

কোতোয়ালী থানার ওসি তাজুল ইসলাম বলেন, সার আত্মসাৎ ও ভেজাল মিশ্রণের দায়ে পরিবহনকারী ঠিকাদার আহসান হাবীব এবং তার প্রতিনিধি মোহাম্মদ ইব্রাহিম হায়দারের ‍বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ৪০৬, ৪১৭ ও ৪২০ এবং ২০০৬ সালের সার ব্যবস্থাপনা আইনের ১৭(৩) ধারায় মামলা হয়েছে। আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, পরিবহন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স সৈয়দ এন্টারপ্রাইজ চট্টগ্রামের উত্তর পতেঙ্গায় অবস্থিত টিএসপি কমপ্লেক্স থেকে যশোর বাফার গুদামে পরিবহনের জন্য গত ১৪ মার্চ ১৫৪ মেট্রিক টন এবং ১৫ মার্চ ৮৭ মেট্রিক টন মোট ২৪১ মেট্রিক টন গুণগতমানসম্পন্ন টিএসপি সার উত্তোলন করে। এরমধ্যে ঠিকাদার ভাল অবস্থায় ৯৮ মেট্রিক টন সার বাফার গুদামে পরিবহন করেন। গত ১৭ মার্চ বিকালে পাঁচটি ট্রাকে করে ৭০ মেট্রিক টন টিএসপি সার যশোর বাফার গুদামে আনা হয়। সার খালাসের সময় পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, পূর্বের প্রেরিত সঙ্গে সাথে কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে। দু-একটি বস্তায় দেখা যায়, পূর্বে একবার সেলাই করা হয়েছে। পরে ওই সেলাই খোলা হয়েছে এবং পুনরায় সেলাই করা হয়েছে। ঠিকাদার ও তার প্রতিনিধি এই ৭০ মেট্রিক টন সারে ভেজাল মিশ্রণ করেছেন। অবশিষ্ট ৭৩ মেট্রিক টন টিএসপি সার ঠিকাদার বাফার গুদামে পরিবহন না করে আত্মসাৎ করেছেন। এতে টিএসপি কমপ্লেক্সের সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে, কৃষক প্রতারিত হওয়া ও কৃষির উৎপাদনশীলতা কমে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া টিএসপি সার তথা সরকারি সম্পদ আত্মসাতের মাধ্যমে টিএসটি কমপ্লেক্স লিমিটেডকে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করা হয়েছে।

টিএসপি কমপ্লেক্স লিমিটেড বিসিআইসির নিয়ন্ত্রিত ও পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। চট্টগ্রামের উত্তর পতেঙ্গায় অবস্থিত টিএসপি কমপ্লেক্স থেকে যশোর, ঝিনাইদহ, নড়াইল, মাগুরা, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া জেলার জন্য মাসিক বরাদ্দের টিএসপি সার যশোর বাফার গুদামে আনা হয়। সেখান থেকে সার বিসিআইসি ডিলারের মাধ্যমে মাঠপর্যায়ে কৃষকদের মধ্যে ভর্তুকি মূল্যে বিক্রি করা হয়। গত ৯ জানুয়ারি যশোর বাফার গুদামে সার পরিবহন করার জন্য চট্টগ্রামের মাঝিরঘাটের পরিবহন ঠিকাদার মেসার্স সৈয়দ এন্টারপ্রাইজকে কার্যাদেশ দেয় টিএসপি কমপ্লেক্স লিমিটেড। এর পর থেকে সার পরিবহন করে আসছিল প্রতিষ্ঠানটি।

যশোর জেলার জন্য বরাদ্দ ৭০ মেট্রিক টন টিএসপি সার ১৭ মার্চ পাঁচটি ট্রাকে করে যশোর বাফার গুদামে আনা হয়। সার পৌঁছানোর পর বাফার গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ইনচার্জ) সন্দেহ হওয়ায় তিনি সার খালাস না করে ট্রাকগুলো গুদামের বাইরে রাখার নির্দেশ দেন। পরদিন ১৮ মার্চ বিষয়টি তিনি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানান। এর পর থেকে সারবোঝাই ট্রাকগুলো বাফার গুদামের সামনে রয়েছে।

এ ঘটনায় টিএসপি কমপ্লেক্স লিমিটেডের উপপ্রধান রসায়নবিদ রেজাউল হককে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অপর দুই সদস্য হলেন বিসিআইসির উৎপাদন বিভাগের ব্যবস্থাপক শফিকুল কবীর ও বিসিআইসির উপপ্রধান হিসাব রক্ষক নির্মল কুমার দত্ত। তদন্ত কমিটির সদস্যরা যশোরে এসে ১৯-২০ মার্চ তদন্ত করেন। কমিটি চট্টগ্রাম থেকে আসা ট্রাকের কাগজপত্র, ট্রাভেল এজেন্সির কাগজপত্র পরীক্ষা করে। কমিটি সারের ১০টি বস্তা থেকে সারের নমুনা সংগ্রহ করে চট্টগ্রামে টিএসপি কমপ্লেক্স লিমিটেড এবং মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট, আঞ্চলিক গবেষণাগার, যশোরের পরীক্ষাগারে পরীক্ষার জন্য পাঠায়। গত বৃহস্পতিবার ওই পরীক্ষার প্রতিবেদন দেওয়া হয়। পরীক্ষায় ১০টির মধ্যে ৯টি নমুনায় সম্পূর্ণ ভেজালের প্রমাণ পাওয়া গেছে। অবশিষ্ট নমুনাটি ভালোর কাছাকাছি, কিন্তু সম্পূর্ণ ভেজালমুক্ত নয় বলে প্রমাণ মিলেছে।

ওই দিন সন্ধ্যায় বিসিআইসির কর্মকর্তারা এক জরুরি বৈঠক বসেন। বৈঠকে পরিবহন ঠিকাদারের কার্যাদেশ বাতিল, তার বিরুদ্ধে মামলা এবং তদন্ত কমিটি গঠনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.